RSS Feed

Questions sacrifice/কুরবানীর মাসায়েল

 To inform the proper method of distribution of sacrificial meat?

-The Kader, Jharkhand, West Bengal, India.

Answer: He said the matter, you poor, poor people eat and eat ‘ (Hajj 8) . He said, “Eat ye, presenting their needs to those who do not want to eat them and eat them ‘ (Hajj 36) . Bin Mas’ood (RA) sacrifice themselves part of the meat and drank three parts, one third of whom had wanted to treat him and the third phakira-poor. Abdullah ibn Abbas (ra), the Prophet (sm) said that the distribution of sacrificial meat, the smaller feed his family, part of the poor to give to neighbors and third-phakiradera would sayela. Hafez Abu Musa said: The hadeeth is Hasan. However Besides, I do not know its certification. He does not know the meaning of ‘Hasan’ said, not for certification in (H / 1160; Discussion Note: Mir’at H / interpretation of 1493, p 5120) . The Imam Ahmad, Shafei (Rh) of the meat offerings, including many scholars Three says it desirable (Subulus Salam Sharah Bulooghul Maram 4/188 p).

Therefore sacrificial meat is three. Who has sacrificed themselves and one third and one third percent phakira-indigent neighbors. No one needs to adjust the distribution of (Subulus Salam Sharah 4/188 Bulooghul Maram Al-Mughni 11/108; Mir’at 2369, ibid, p 5120) . Note that the sacrifice is eaten with meat as long as it pleased (Tirmizi H / 1510, Muttafaq ‘Alaih, Mishkat H / 2744) .

Therefore, one-third of the center portion of the offerings in their respective neighborhoods and neighborhood who could not sacrifice the regularity of their list, and to be distributed among them better serve their home. The remaining one-third will be distributed among the indigent phakira- (See Masail sacrifice and Aqeeqah ‘book, p 3) . This kurabanidata Ria and stay safe from the myth, and his heart is pure. And this is the main motivation for sacrifice. Nowadays, there are many people in the flesh of some of the neighbors and the rest of the meat phakira-indigent were distributed among themselves again. It precepts. Niggardly gets through. Which must be rejected.

 

কুরবানীর গোশত বণ্টনের সঠিক পদ্ধতি জানিয়ে বাধিত করবেন।

-আব্দুল কাদের, ঝাড়খন্ড, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত।

উত্তর : উক্ত বিষয়ে আল্লাহ তা‘আলা বলেন, ‘তোমরা খাও এবং অভাবগ্রস্ত দরিদ্র লোকদের খাওয়াও’ (হজ্জ ২৮)। তিনি আরও বলেন, ‘তোমরা নিজেরা খাও, যারা চায় না তাদের খাওয়াও এবং যারা নিজেদের প্রয়োজন পেশ করে তাদের খাওয়াও’ (হজ্জ ৩৬)। ইবনু মাসঊদ (রাঃ) কুরবানীর গোশত তিনভাগ করে একভাগ নিজেরা খেতেন, একভাগ যাকে চাইতেন তাকে খাওয়াতেন এবং একভাগ ফকীর-মিসকীনকে দিতেন। আবদুল্লাহ ইবনু আববাস (রাঃ) রাসূল (ছাঃ)-এর কুরবানীর গোশত বন্টন সম্পর্কে বলেন যে, তিনি একভাগ নিজের পরিবারকে খাওয়াতেন, একভাগ গরীব প্রতিবেশীদের দিতেন এবং একভাগ সায়েল-ফকীরদের দিতেন। হাফেয আবু মূসা বলেন, হাদীছটি ‘হাসান’। তবে আলবানী বলেন, আমি এটির সনদ জানতে পারিনি। জানি না তিনি অর্থের দিক দিয়ে ‘হাসান’ বলেছেন, না সনদের দিক দিয়ে (ইরওয়া হা/১১৬০; আলোচনা দ্রষ্টব্য: মির‘আত হা/১৪৯৩-এর ব্যাখ্যা, ৫/১২০ পৃঃ)। এছাড়া ইমাম আহমাদ, শাফেঈ (রহঃ) সহ বহু বিদ্বান কুরবানীর গোশত তিনভাগ করাকে মুস্তাহাব বলেছেন (সুবুলুস সালাম শরহ বুলূগুল মারাম ৪/১৮৮ পৃঃ)।

অতএব কুরবানীর গোশত তিন ভাগ করা যায়। একভাগ নিজেদের ও একভাগ প্রতিবেশীদের যারা কুরবানী করেনি এবং এক ভাগ ফকীর-মিসকীনদের। প্রয়োজনে বণ্টনে কমবেশী করাতে কোন দোষ নেই (সুবুলুস সালাম শরহ বুলূগুল মারাম ৪/১৮৮; আল-মুগনী ১১/১০৮; মির‘আত ২/৩৬৯; ঐ, ৫/১২০ পৃঃ)। উল্লেখ্য যে, কুরবানীর গোশত যতদিন খুশী রেখে খাওয়া যায় (তিরমিযী হা/১৫১০, মুত্তাফাক্ব ‘আলাইহ, মিশকাত হা/২৭৪৪)

অতএব মহল্লার স্ব স্ব কুরবানীর গোশতের এক-তৃতীয়াংশ একস্থানে জমা করে মহল্লায় যারা কুরবানী করতে পারেনি তাদের তালিকা করে সুশৃংখলভাবে তাদের মধ্যে বিতরণ করা ও প্রয়োজনে তাদের বাড়ীতে পৌঁছে দেওয়া উত্তম। বাকী এক-তৃতীয়াংশ ফকীর-মিসকীনদের মধ্যে বিতরণ করবেন (দ্রঃ মাসায়েলে কুরবানী ও আক্বীক্বা’ বই, পৃঃ ২৩)। এর ফলে কুরবানীদাতা রিয়া ও শ্রুতি থেকে নিরাপদ থাকবেন এবং তার অন্তর পরিশুদ্ধ হবে। আর এটাই হ’ল কুরবানীর মূল প্রেরণা। আজকাল অনেকে গোশত জমা করে সেখান থেকে প্রতিবেশী ও ফকীর-মিসকীনদের কিছু কিছু দিয়ে বাকী গোশত পুনরায় নিজেদের মধ্যে বণ্টন করে নেন। এটি একটি কুপ্রথা। এর মাধ্যমে কৃপণতা প্রকাশ পায়। যা অবশ্যই পরিত্যাজ্য।

– See more at: http://www.at-tahreek.com/october2014/qa_18_1_19.html#sthash.HCYGd2MF.HMMzjhMg.dpuf

xxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxxx

– (sourse-http://www.at-tahreek.com/october2014/article0601.html#)Questions sacrifice

Al-Tahreek Desk

(1) Do not cut the hair, nails: Umm Salamah (ra) narrated, the Prophet (sm), “those of you who erada to sacrifice, they sacrifice Hijjah moon done after waking up from the self- to cut the hair and nails have refrained from self ‘. [1] (log-on=http://islamqa.info/en/70290)

(II) Hadi: This is a three-Type camels, cows and goats. Configuring and Testing in MAX. Each man and Madi. To sacrifice an animal with such evidence other than the Prophet (sm) and is available from Sahabis. Many scholars, however, permissible to sacrifice the buffalo cow and said kbiyasa above. [2] Imam Shafei (Rh) said, “There is no animal sacrifice animals as described above will not be realized. [3] Hadi strong, beautiful and perfect h will be on. It is forbidden to four types of animal sacrifice. These are clear, the lame, the clear eyed, clear-cut or puncture the patient and haggard and half an ear and half a broken horn. [4] However, after the purchase of the perfect animal is new or old, no fault khumt comes out, then the animal by Sacrifice will be valid. [5]

Toxic injection and tablets or food to feed the animals is prohibited sundarai fair, buy it knowing it will not be sacrificed. Should be removed after it knows. Because people like those poisonous animals silently formalin killed meat. People in the liver, kidney, cancer and heart disease are manifold and complex. Within the bone marrow, the most damaging of these cows. After the rest of the animal’s body of toxic poisons are stored marrow diseases. The Prophet (sm), you can not harm and can not be harmed ” (Abu Daud) . He said that people would cheat, he does not belong to us (Muslims) . Note that not castrate and castrate any khumt kurabanite Shari’ah is not blocked. Prophet (sm) castrated and sacrificed himself. [6]

(3) ‘musinnaha’ sacrifice By: The Prophet (sm), “You have broken the teeth of the new milk tooth (musinnaha) except yabaha not animals. If, however, a year of painstaking occupant sheep (or goat fat) can sacrifice. [7] In the light of most of the scholars of hadeeth indicated in the hadeeth ‘musinnaha’ animal sacrifice ‘for the better’ was regarded as. [8]

‘Musinnaha’ animal sixth year and third year padarpanakari padarpanakari camel or goat-sheep-cow called dumbake. [9] Because of the age of this animal’s milk teeth have broken up the new teeth. Despite the age of the animals fed a lot more of the teeth are not the right time. No excuse not to expect the animal to be sacrificed.

(4) on behalf of himself and his family from an animal:

(A) the mother, Ayesha (ra), the Prophet (sm) said to a horned beautiful white-black-fat … and then read the following Doa, bsm allhm tqbl of Surah Allah Mohamed Mohamed and who wal mhmd amt ‘the name of Allah ( ‘re sacrifice), O Allah! You accept party from Muhammad, his family and his community from yourself from yourself. The sacrifices made ​​by the fat. [10]

(B) the purpose of the last Hajj of the Prophet janamandalike assembled the day of Arafah (sm), O you men ya ahl Surely thy kl kl am fy byt adhyt tyrt w … ‘O people! Indeed, every year, one in every family sacrifices and atiraha above. Daud (Rh) said, ‘atiraha’ payments after the mandate is repealed. [11] Abu Ayub Ansari (ra) said, in the household of Sahabis the goat sacrifice was practiced (Tirmizi H / 1505) . Wealthy Abu sariha Sahabi (ra) said, after knowing the sunnah of the household or by two sheep were sacrificed. The neighbors are now saying our bakhila ‘ (Ibnu Majah H / 3148) . The Prophet (sm) in Medina in his own family, and introduce the two to ‘castrate’ Cows and camels and sacrificed during the Hajj journey (Muttafaq Alaih, Mishkat H / 1453) . Therefore, the number of members of the joint family as a flock from numerous fair enough to everyone. If the father wishes prthakanna they’ll be treated as a separate family. Unlike today, however, they can help pay for the father. Note that the Hadeeth of seven flee sacrifice associated with the tour, in his condition, it does not apply. The Prophet (sm) or in his state Sahabis ever had sacrificed seven flee. Many people would sacrifice part of 3 or 5, which is not at all sariatasammata.

(5) “Sacrifice and Aqeeqah dutirai attaining closeness to Allah is the purpose of this (isatihasanera) Hanafi scholars argue no cows or camels for sacrifice to accomplish one or more child Aqeeqah expression (which is introduced in this country, there are many). [ 12] is known to be the pillars of the Hanafi Fiqh Imam Abu Yusuf (rah) was opposed to this opinion. Imam Shawkani (Rh) of the arch to protest said Acts, it is not possible to prove anything except the specific authority. [13]

(6) the method of sacrifice: (a) standing camel’s ‘halakbuma’ determination to sacrifice or throat starters ‘freight-hee Allahu Akbar’ blood flowing through astraghatera say ‘spring’ and the cow or goat’s head is to the left, leaving the south side kate Putting ‘yabaha’ is not. [14] sacrifice was placed on the donor Doa sharp knife is very sharp yabahera facilitates the work of their own hands shall fall, so the animals are less trouble. At the time of the Prophet (sm) with the animal’s neck with his right foot pressed. Pressed by left hand can yabahakari chap. The Prophet (sm) has yabaha manually. Yabaha done by others is permissible. However, this important prayer is better manual or yabahera time to direct teaching. 10, 11, 1 yilahajja three days, day and night will be sacrificed at any time. [15] on the expression of 13 of the Sahabi and scholars. [16]

(7) yabahakalina Doa: (1) freight-hi Alla-hu Akbar (meaning: the name of Allah, Allah is the highest) (ii) freight-hi Min Alla Holy Scripture takbababala minnee bayati (the name of Allah, O Allah, Thou accept from me and from my family).

If the sacrifice of others say or think of her name and face to constantly say, ‘freight-hi Alla takbababala Minh Minh Holy Scripture bayatihi pout’ (… such and his family from the side). Abstain from this time to recite prayer. [17] (3) If there is fear of Doa forget or make a mistake, but just ‘Bismillah’ seem to be sufficient if the intention of sacrifice. [18]

(8) It is forbidden to sacrifice before the end of the Eid salat and sermons. He continued to give the sacrifice of another. [19]

(9) the meat distributed:  one to three quarters of the offerings of meat meals for their families, one neighbor who did not want to sacrifice one of them and will be distributed in the shared sayela phakbira-indigent. There is no harm in sharing the necessary obligations. [20] as happy today with the meat can be eaten. [21] can be non-poor neighbor. [22]

(10) separately for the sacrifices of the dead person is no authentic proof. If the family member of the deceased person and the Acts do not apply to them. It is a sacrifice on behalf of individuals and families from living. Now if someone was sacrificed in the name of the deceased, however, Abdullah bin Mubarak (118-181 AH), he will have to sacrifice sabatukui. [23]

(11) It is forbidden to sell the meat of sacrifice. However, by selling the skin [24] Acts directed sacrifice will spend in the trenches (turn 60) . Many of the offerings in the refrigerated meat was later sold cheaply. These are just hype. But in others it will be delivered as written or deceased. Or withhold eat as long as it pleased. Sacrifice meyabani God. Therefore the business is not legitimate in the flesh.

(1) to yabaha Hadi sacrificial meat or skin, or kuta-one can claim any money from the wages can not be paid. Wages had disciples from respective pockets. However, the person giving him something for the poor, then there is no harm to the deceased. [25]

(13) The Prophet (sm) a day of Eid-ul-Fitr and Eid-ul-Azha from a few odd dates to eat out Musallaa salat until the day was eating nothing. [26] by the flesh of the sacrificial animals created. [27]

(15) It is forbidden to sacrifice sacrifice rather than its value. Here the worship of God is the cause of blood flow. If anyone want to sacrifice sacrifice rather than its value, then the public would oppose muhammadi Shari’ah. [28]

(16) to sacrifice Muakkadah Sunnat. It is not obligatory that any price everyone must sacrifice. People think that it is not obligatory, and, therefore, despite the capability of Hazrat Abu Bakr, Umar Farooq Abdullah ibn Umar, Abdullah ibn Abbas (ra) Sahabis do sometimes sacrifice. [29] Therefore, if the debt may be paid to. However, with the consent of the donor is not blocked to both sacrifice to pay the debt later.

Sacrifice other rulings:

(A) to buy the pet, or to sacrifice an animal, declaring that if he fixed it and it can not be changed. If, however, did not specify, but instead can be a good animal sacrifice. (B) the young cow or sheep for sacrificial offerings before the child is born alive, but in those days the children of the Eid sacrifice. Prior to sacrifice, the child needs to be able to get extra milk to own or be able to use the proceeds of money itself. But Imam Abu Hanifah (rah) According to sacrifice money to sell milk or milk well. For today, however, and that if they did not, declaring that unless specified, it also can be yabaha, can be put. (C) if the sacrificial animal is lost or stolen, but it is likely the other sacrifices. If the animal is not trying or later, but it will only be the cause of Allah yabaha. (D) prior to sacrifice, the sacrifice of the donor had died and that her condition is that, unlike the animal proceeds of money and there is no way of paying the debt, the repayment of interest only to the sale of sacrificial animals. [30]

[For details, please read, “Sacrifice and Aqeeqah Masail ‘book]


[1] . Muslim, Mishkat H / 1459; Nasaii, Mir’at H / 1474 of the explanation, 5/86.

[2] . An’am 144-45; Mir’at 5/81 p.

[3] . Kitab al Umm (Beirut: chapah Date Profit) 2223 p.

[4] . Muwatta, Mishkat, Tirmizi etc. H / 1465, 1463, 1464; Fiqhus Sunnah (Cairo chapah 14121992), 230 p.

[5] . Mir’at 5/99 p .

[6] . Ibnu Majah H / 3122, H / 1138, certification as authentic.

[7] . Muslim, Mishkat H / 1455; Including Nasaii talikbata (Lahore chapah without date), 2196 p.

[8] . Mir’at (laksnau) P. 2353; Those, (Benaras) 5/80 p.

[9] . Mir’at, P. 2352; Of those, 5 / 78-79 p.

[10] . Muslim, Mishkat H / 1454.

[11] . Tirmidhi, Mishkat H / 1478. Hadeeth Charter ‘strong’ Ibnu Hajar, P. 10/6 Fathul Bari; Charter ‘Hasan’ Albani, authentic Nasaii (Beirut: 1988), H / 3940.

[12] . Burhanuddeen Margheenani, Hidayah (Delhi: 1358 AH), ‘Sacrifice’ section 4/433; Ashraf Ali thanabhi, Baltimore jeora (Dhaka: emadadiya Library, 10 th printing 1990) ‘Aqeeqah’ section 1/300 p.

[13] . Naylul Awtar, ‘Aqeeqah’ section 6268 p.

[14] . Subulus Salam, 4/177 P.; Mir’at 2351; That, as 5/75.

[15] . Fiqhus Sunnah P. 230.

[16] . Mir’at 5 / 106-109.

[17] . Mir’at P. 2350; Those, 5/74 p.

[18] . Ibnu Qudama, al-Mughni (Beirut Printing: without date), 11/117 p.

[19] . Muttafaq Alaih, Mishkat H / 1472; Muslim, Nayl 6/48, and 49 p.

[20] . Mir’at 5120 .

[21] . Tirmizi H / 1510; Ahmad H / 26458 certification Hasan.

[22] . al-Adabul Mufrad H / 128 .

[23] . Tirmidhi Tuhfa, H / 1528, p 5/79; Mir’at 5/94 p.

[24] . Ahmad, Mir’at 5121; Al-Mughni  11/111 p.

[25] . Al-Mughni, 11/110 p.

[26] . Bukhari, Mishkat H / 1433; Tirmizi, Mishkat, H / 1440 certification pure.

[27] . Ahmad H / 23034, Charter Hasan; Naylul Awtar 4241 .

[28] . Majmu ‘Fatawa Ibn Taiymiah, 26304; Mughni, 11 / 94-95 p.

[29] . Baihaqi, Irwaul H / 1139; Mir’at 5/7-73 .

[30] . Mir’at, II / 368-69; Of those, 5/117120; Umm Bible II / 225-6.

– See more at: http://www.at-tahreek.com/october2014/article0601.html#sthash.51cFHbxt.dpuf

কুরবানীর মাসায়েল

আত-তাহরীক ডেস্ক

(১) চুল-নখ না কাটা : উম্মে সালামাহ (রাঃ) হ’তে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) এরশাদ করেন, ‘তোমাদের মধ্যে যারা কুরবানী দেওয়ার এরাদা রাখে, তারা যেন যিলহজ্জ মাসের চাঁদ ওঠার পর হ’তে কুরবানী  সম্পন্ন  করা  পর্যন্ত  স্ব স্ব চুল ও নখ কর্তন করা হ’তে বিরত থাকে’।[1]

(২) কুরবানীর পশু : এটা তিন প্রকার- উট, গরু ও ছাগল। দুম্বা ও ভেড়া ছাগলের মধ্যে গণ্য। প্রত্যেকটির নর ও মাদি। এগুলির বাইরে অন্য পশু দিয়ে কুরবানী করার প্রমাণ রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) ও ছাহাবায়ে কেরাম থেকে পাওয়া যায় না। তবে অনেক বিদ্বান গরুর উপরে ক্বিয়াস করে মহিষ দ্বারা কুরবানী জায়েয বলেছেন।[2] ইমাম শাফেঈ (রহঃ) বলেন, ‘উপরে বর্ণিত পশুগুলি ব্যতীত অন্য কোন পশু দ্বারা কুরবানী সিদ্ধ হবে না’।[3] কুরবানীর পশু সুঠাম, সুন্দর ও নিখুঁত হ’তে হবে। চার ধরনের পশু কুরবানী করা নাজায়েয। যথা- স্পষ্ট খোঁড়া, স্পষ্ট কানা, স্পষ্ট রোগী ও জীর্ণশীর্ণ এবং অর্ধেক কান কাটা বা ছিদ্র করা ও অর্ধেক শিং ভাঙ্গা।[4] তবে নিখুঁত পশু ক্রয়ের পর যদি নতুন করে খুঁৎ হয় বা পুরানো কোন দোষ বেরিয়ে আসে, তাহ’লে ঐ পশু দ্বারাই কুরবানী বৈধ হবে’।[5]

বিষাক্ত ইনজেকশন দিয়ে ও ট্যাবলেট বা খাবার খাইয়ে মোটাতাজা করা পশু দেখতে যত সুন্দরই হৌক, জেনেশুনে তা কিনলে তাতে কুরবানী হবে না। পরে জানলেও তা বাদ দেওয়া উচিৎ। কেননা ঐসব বিষাক্ত পশুর গোশত ফরমালিনের মত মানুষকে নীরবে হত্যা করে। এতে মানুষ লিভার, কিডনী, ক্যান্সার ও হৃদরোগসহ নানাবিধ জটিল রোগে আক্রান্ত হয়। এইসব গরুর হাড়ের ভিতরকার মজ্জা সবচেয়ে বেশী ক্ষতিকর। পশুর দেহ বিষাক্ত করার পর বাকী বিষের সবটুকু মজ্জায় গিয়ে জমা হয়। রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) বলেন, তোমরা ক্ষতি করো না ও ক্ষতিগ্রস্ত হয়ো না’ (আবুদাঊদ)। তিনি বলেন, যে ব্যক্তি প্রতারণা করে, সে আমাদের দলভুক্ত নয় (মুসলিম)। উল্লেখ্য যে, খাসি করা কোন খুঁৎ নয় এবং খাসি কুরবানীতে শরী‘আতে কোন বাধা নেই। রাসূল (ছাঃ) নিজে খাসি কুরবানী করেছেন।[6]

(৩) ‘মুসিন্নাহ’ দ্বারা কুরবানী : রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) এরশাদ করেন, ‘তোমরা দুধের দাঁত ভেঙ্গে নতুন দাঁত ওঠা (মুসিন্নাহ) পশু ব্যতীত যবহ করো না। তবে কষ্টকর হ’লে এক বছর পূর্ণকারী ভেড়া (দুম্বা বা ছাগল) কুরবানী করতে পার’।[7] জমহূর বিদ্বানগণ অন্যান্য হাদীছের আলোকে এই হাদীছে নির্দেশিত ‘মুসিন্নাহ’ পশুকে কুরবানীর জন্য ‘উত্তম’ হিসাবে গণ্য করেছেন।[8]

‘মুসিন্নাহ’ পশু ষষ্ঠ বছরে পদার্পণকারী উট এবং তৃতীয় বছরে পদার্পণকারী গরু বা ছাগল-ভেড়া-দুম্বাকে বলা হয়।[9] কেননা এই বয়সে সাধারণতঃ এই সব পশুর দুধের দাঁত ভেঙ্গে নতুন দাঁত উঠে থাকে। তবে অনেক পশুর বয়স বেশী ও হৃষ্টপুষ্ট হওয়া সত্ত্বেও সঠিক সময়ে দাঁত ওঠে না। এসব পশু দ্বারা কুরবানী করা ইনশাআল্লাহ কোন দোষের হবে না।

(৪) নিজের ও নিজ পরিবারের পক্ষ হ’তে একটি পশু :

(ক) মা আয়েশা (রাঃ) বলেন, রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) একটি শিংওয়ালা সুন্দর সাদা-কালো দুম্বা আনতে বললেন, …অতঃপর নিম্নোক্ত দো‘আ পড়লেন, بِسْمِ اللهِ أَللَّهُمَّ تَقَبَّلْ مِنْ مُحَمَّدٍ وَّآلِ مُحَمَّدٍ وَّمِنْ أُمَّةِ مُحَمَّدٍ- ‘আল্লাহর নামে (কুরবানী করছি), হে আল্লাহ! তুমি কবুল কর মুহাম্মাদের পক্ষ হ’তে, তার পরিবারের পক্ষ হ’তে ও তার উম্মতের পক্ষ হ’তে’। এরপর উক্ত দুম্বা দ্বারা কুরবানী করলেন’।[10]

(খ) বিদায় হজ্জে আরাফার দিনে সমবেত জনমন্ডলীকে উদ্দেশ্য করে রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) এরশাদ করেন,يَآ أَيُّهَا النَّاسُ إِنَّ عَلَى كُلِّ أَهْلِ بَيْتٍ فِىْ كُلِّ عَامٍ أُضْحِيَةً  وَ عَتِيْرَةً… ‘হে জনগণ! নিশ্চয়ই প্রত্যেক পরিবারের উপরে প্রতি বছর একটি করে কুরবানী ও আতীরাহ’। আবুদাঊদ (রহঃ) বলেন, ‘আতীরাহ’ প্রদানের হুকুম পরে রহিত করা হয়।[11] আবু আইয়ুব আনছারী (রাঃ) বলেন, ছাহাবায়ে কেরামের মধ্যে পরিবারপিছু একটি করে বকরী কুরবানীর রেওয়াজ দিল (তিরমিযী হা/১৫০৫)। ধনাঢ্য ছাহাবী আবু সারীহা (রাঃ) বলেন, সুন্নাত জানার পর লোকেরা পরিবারপিছু একটি বা দু’টি করে বকরী কুরবানী দিত। অথচ এখন প্রতিবেশীরা আমাদের বখীল বলছে’ (ইবনু মাজাহ হা/৩১৪৮)। রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) মদীনায় মুক্বীম অবস্থায় নিজ পরিবার ও উম্মতের পক্ষ হতে দু’টি করে ‘খাসি’ এবং হজ্জের সফরে গরু ও উট কুরবানী করেছেন (মুত্তাফাক্ব আলাইহ, মিশকাত হা/১৪৫৩)। অতএব একান্নবর্তী পরিবারের সদস্য সংখ্যা যত বেশীই হৌক না কেন সকলের পক্ষ থেকে একটি পশুই যথেষ্ট। এক পিতার সন্তান হ’লেও পৃথকান্ন হ’লে তারা পৃথক পরিবার হিসাবে গণ্য হবেন। তবে তারা পৃথক কুরবানীর জন্য পিতাকে অর্থ সাহায্য করতে পারেন। উল্লেখ্য যে, সাত ভাগা কুরবানীর হাদীছ সফরের সাথে সংশ্লিষ্ট, মুক্বীম অবস্থায় এটি প্রযোজ্য নয়। রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) বা ছাহাবায়ে কেরাম মুক্বীম অবস্থায় কখনো সাত ভাগা কুরবানী করেননি। অনেকে ৩ বা ৫ ভাগে কুরবানী করেন, যা আদৌ শরী‘আতসম্মত নয়।

(৫) ‘কুরবানী ও আক্বীক্বা দু’টিরই উদ্দেশ্য আল্লাহর নৈকট্য হাছিল করা’ এই (ইসতিহসানের) যুক্তি দেখিয়ে কোন কোন হানাফী  বিদ্বান  কুরবানীর গরু  বা  উটে  এক বা একাধিক সন্তানের আক্বীক্বা সিদ্ধ বলে মত প্রকাশ করেছেন (যা এদেশে অনেকের মধ্যে চালু আছে)।[12] হানাফী মাযহাবের স্তম্ভ বলে খ্যাত ইমাম আবু ইউসুফ (রহঃ) এই মতের বিরোধিতা করেন। ইমাম শাওকানী (রহঃ) এর ঘোর প্রতিবাদ করে বলেন, এটি শরী‘আত, এখানে সুনির্দিষ্ট দলীল ব্যতীত কিছুই প্রমাণ করা সম্ভব নয়।[13]

(৬) কুরবানী করার পদ্ধতি : (ক) উট দাঁড়ানো অবস্থায় এর ‘হলক্বূম’ বা কণ্ঠনালীর গোড়ায় কুরবানীর নিয়তে ‘বিসমিল্লা-হি আল্লাহু আকবার’ বলে অস্ত্রাঘাতের মাধ্যমে রক্ত প্রবাহিত করে ‘নহর’ করতে হয় এবং গরু বা ছাগলের মাথা দক্ষিণ দিকে রেখে বাম কাতে ফেলে ‘যবহ’ করতে হয়।[14] কুরবানী দাতা ধারালো ছুরি নিয়ে ক্বিবলামুখী হয়ে দো‘আ পড়ে নিজ হাতে খুব জলদি যবহের কাজ সমাধা করবেন, যেন পশুর কষ্ট কম হয়। এ সময় রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) নিজের ডান পা দিয়ে পশুর ঘাড় চেপে ধরতেন। যবহকারী বাম হাত দ্বারা পশুর চোয়াল চেপে ধরতে পারেন। রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) নিজ হাতে যবহ করেছেন। অন্যের দ্বারা যবহ করানো জায়েয আছে। তবে এই গুরুত্বপূর্ণ ইবাদতটি নিজ হাতে করা অথবা যবহের সময় স্বচক্ষে প্রত্যক্ষ করা উত্তম। ১০, ১১, ১২ যিলহাজ্জ তিন দিনের রাত-দিন যে কোন সময় কুরবানী করা যাবে।[15] অনেক ছাহাবী ও বিদ্বানগণ ১৩ তারিখেও জায়েয বলেছেন।[16]

(৭) যবহকালীন দো‘আ : (১) বিসমিল্লা-হি আল্লা-হু আকবার (অর্থ: আল্লাহর নামে, আল্লাহ সর্বোচ্চ) (২) বিসমিল্লা-হি আল্লা-হুম্মা তাক্বাববাল মিন্নী ওয়া মিন আহলে বায়তী (আল্লাহর নামে, হে আল্লাহ! তুমি কবুল কর আমার ও আমার পরিবারের পক্ষ হ’তে)।

এখানে কুরবানী অন্যের হ’লে তার নাম মুখে বলবেন অথবা মনে মনে নিয়ত করে বলবেন, ‘বিসমিল্লা-হি আল্লা-হুম্মা তাক্বাববাল মিন ফুলান ওয়া মিন আহলে বায়তিহী’ (…অমুকের ও তার পরিবারের পক্ষ হ’তে)। এই সময় দরূদ পাঠ করা মাকরূহ’।[17] (৩) যদি দো‘আ ভুলে যান বা ভুল হবার ভয় থাকে, তবে শুধু ‘বিসমিল্লাহ’ বলে মনে মনে কুরবানীর নিয়ত করলেই যথেষ্ট হবে।[18]

(৮) ঈদের ছালাত ও খুৎবা শেষ হওয়ার পূর্বে কুরবানী করা নিষেধ। করলে তাকে তদস্থলে আরেকটি কুরবানী দিতে হবে।[19]

(৯) গোশত বণ্টন :  কুরবানীর গোশত তিন ভাগ করে এক ভাগ নিজ পরিবারের খাওয়ার জন্য, এক ভাগ প্রতিবেশী যারা কুরবানী করতে পারেনি তাদের জন্য ও এক ভাগ সায়েল ফক্বীর-মিসকীনদের মধ্যে বিতরণ করবে। প্রয়োজনে উক্ত বণ্টনে কমবেশী করায় কোন দোষ নেই।[20] কুরবানীর গোশত যত দিন খুশী রেখে খাওয়া যায়।[21] অমুসলিম দরিদ্র প্রতিবেশীকেও দেওয়া যায়।[22]

(১০) মৃত ব্যক্তির জন্য পৃথকভাবে কুরবানী দেওয়ার কোন ছহীহ দলীল নেই। মৃত ব্যক্তিগণ পরিবারের সদস্য থাকেন না এবং তাদের উপরে শরী‘আত প্রযোজ্য নয়। অথচ কুরবানী হয় জীবিত ব্যক্তি ও পরিবারের পক্ষ হ’তে। এক্ষণে যদি কেউ মৃতের নামে কুরবানী করেন, তবে হযরত আব্দুল্লাহ ইবনুল মুবারক (১১৮-১৮১ হিঃ) বলেন, তাকে সবটুকুই ছাদাক্বা করে দিতে হবে।[23]

(১১) কুরবানীর গোশত বিক্রি করা নিষেধ। তবে তার চামড়া বিক্রি করে[24] শরী‘আত নির্দেশিত ছাদাক্বার খাত সমূহে ব্যয় করবে (তওবা ৬০)। অনেকে কুরবানীর গোশত ফ্রিজে জমা করে পরবর্তীতে কমদামে বিক্রি করেন। এগুলি প্রতারণা মাত্র। বরং তা অন্যদের মধ্যে ছাদাক্বা বা হাদিয়া হিসাবে বিতরণ করে দিতে হবে। অথবা নিজে রেখে যতদিন খুশী খাবে। কুরবানী আল্লাহর মেযবানী। অতএব এর গোশত নিয়ে ব্যবসা করা বৈধ নয়।

(১২) কুরবানীর পশু যবহ করা কিংবা কুটা-বাছা বাবদ কুরবানীর গোশত বা চামড়ার পয়সা হ’তে কোনরূপ মজুরী দেওয়া যাবে না। ছাহাবীগণ নিজ নিজ পকেট থেকে এই মজুরী দিতেন। অবশ্য ঐ ব্যক্তি দরিদ্র হ’লে হাদিয়া স্বরূপ তাকে কিছু দেওয়ায় দোষ নেই।[25]

(১৩) রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) ঈদুল ফিৎরের দিন কয়েকটি বেজোড় খেজুর খেয়ে ঈদগাহে বের হ’তেন এবং ঈদুল আযহার দিন ছালাত আদায় না করা পর্যন্ত কিছুই খেতেন না।[26] তিনি কুরবানীর পশুর গোশত দ্বারা ইফতার করতেন।[27]

(১৫) কুরবানীর বদলে তার মূল্য ছাদাক্বা করা নাজায়েয। আল্লাহর রাহে রক্ত প্রবাহিত করাই এখানে মূল ইবাদত। যদি কেউ কুরবানীর বদলে তার মূল্য ছাদাক্বা করতে চান, তবে তিনি মুহাম্মাদী শরী‘আতের প্রকাশ্য বিরোধিতা করবেন।[28]

(১৬) কুরবানী করা সুন্নাতে মুওয়াক্কাদাহ। এটি ওয়াজিব নয় যে, যেকোন মূল্যে প্রত্যেককে কুরবানী করতেই হবে। লোকেরা যাতে এটাকে ওয়াজিব মনে না করে, সেজন্য সামর্থ্য থাকা সত্ত্বেও হযরত আবুবকর ছিদ্দীক ওমর ফারূক আব্দুল্লাহ ইবনে ওমর, আব্দুল্লাহ ইবনে আববাস (রাঃ) প্রমুখ ছাহাবী কখনো কখনো কুরবানী করতেন না।[29] অতএব ঋণ থাকলে সেটা পরিশোধ করাই যরূরী। তবে দাতার সম্মতিতে ঋণ দেরীতে পরিশোধ করে কুরবানী দেওয়ায় কোন বাধা নেই।

কুরবানীর অন্যান্য মাসায়েল :

(ক) পোষা বা খরিদ করা কোন পশুকে কুরবানীর জন্য নির্দিষ্ট করলে ও সেই মর্মে ঘোষণা দিলে তা আর বদল করা যাবে না। অবশ্য যদি নির্দিষ্ট না করে থাকেন, তবে তার বদলে উত্তম পশু কুরবানী দেওয়া যাবে। (খ) কুরবানীর জন্য নির্দিষ্ট গাভিন গরু বা বকরী যদি কুরবানীর পূর্বেই জীবিত বাচ্চা প্রসব করে, তবে ঐ বাচ্চা ঈদের দিনগুলির মধ্যেই কুরবানী করবে। কুরবানীর পূর্ব পর্যন্ত বাচ্চার প্রয়োজনের অতিরিক্ত দুধ মালিক পান করতে পারবে বা তার বিক্রয়লব্ধ পয়সা নিজে ব্যবহার করতে পারবে। তবে ইমাম আবু হানীফা (রহঃ)-এর মতে দুধ বা দুধ বিক্রির পয়সা ছাদাক্বা করে দেওয়া ভাল। অবশ্য কুরবানীর জন্য নির্দিষ্ট না করলে ও সেই মর্মে ঘোষণা না দিলে, সেটাকে যবহ করাও যেতে পারে, রেখে দেওয়াও যেতে পারে। (গ) যদি কুরবানীর পশু হারিয়ে যায় বা চুরি হয়ে যায়, তবে তার পরিবর্তে অন্য কুরবানী যরূরী নয়। যদি ঐ পশু ঈদুল আযহার দিন বা পরে পাওয়া যায়, তবে তা তখনই আল্লাহর রাহে যবহ করে দিতে হবে। (ঘ) যদি কুরবানীর পূর্বে কুরবানী দাতা মৃত্যুবরণ করেন এবং তার অবস্থা এমন হয় যে, ঐ পশু বিক্রয়লব্ধ পয়সা ভিন্ন তার ঋণ পরিশোধের আর কোন উপায় নেই, তখন কেবল ঋণ পরিশোধের স্বার্থেই কুরবানীর পশু বিক্রয় করা যাবে।[30]

[বিস্তারিত জানার জন্য পাঠ করুন, ‘মাসায়েলে কুরবানী ও আক্বীক্বা’ বই]


[1]. মুসলিম, মিশকাত হা/১৪৫৯; নাসাঈ, মির‘আত হা/১৪৭৪-এর ব্যাখ্যা, ৫/৮৬।

[2]. আন‘আম ১৪৪-৪৫; মির‘আত ৫/৮১ পৃঃ।

[3]. কিতাবুল উম্ম (বৈরূত : ছাপাঃ তারিখ বিহীন) ২/২২৩ পৃঃ।

[4]. মুওয়াত্ত্বা, তিরমিযী প্রভৃতি মিশকাত হা/১৪৬৫, ১৪৬৩, ১৪৬৪; ফিক্বহুস সুন্নাহ (কায়রো ছাপাঃ ১৪১২/১৯৯২) ২/৩০ পৃঃ।

[5]. মির‘আত ৫/৯৯ পৃঃ

[6]. ইবনু মাজাহ হা/৩১২২, ইরওয়া হা/১১৩৮, সনদ ছহীহ।

[7]. মুসলিম, মিশকাত হা/১৪৫৫; নাসাঈ তা‘লীক্বাত সহ  (লাহোর ছাপাঃ তারিখ বিহীন), ২/১৯৬ পৃঃ।

[8]. মির‘আত (লাক্ষ্ণৌ) ২/৩৫৩ পৃঃ; ঐ, (বেনারস) ৫/৮০ পৃঃ।

[9]. মির‘আত, ২/৩৫২ পৃঃ; ঐ, ৫/৭৮-৭৯ পৃঃ।

[10]. মুসলিম, মিশকাত হা/১৪৫৪।

[11]. তিরমিযী প্রভৃতি, মিশকাত হা/১৪৭৮। হাদীছটির সনদ ‘শক্তিশালী’ ইবনু হাজার, ফাৎহুল বারী ১০/৬ পৃঃ; সনদ ‘হাসান’  আলবানী, ছহীহ নাসাঈ (বৈরূত : ১৯৮৮), হা/৩৯৪০।

[12]. বুরহানুদ্দীন মারগীনানী, হেদায়া (দিল্লী : ১৩৫৮ হিঃ) ‘কুরবানী’ অধ্যায় ৪/৪৩৩; আশরাফ আলী থানভী, বেহেশতী জেওর (ঢাকা : এমদাদিয়া লাইব্রেরী, ১০ম মুদ্রণ ১৯৯০) ‘আক্বীক্বা’ অধ্যায়  ১/৩০০ পৃঃ।

[13]. নায়লুল আওত্বার, ‘আক্বীক্বা’  অধ্যায় ৬/২৬৮ পৃঃ।

[14]. সুবুলুস সালাম, ৪/১৭৭ পৃঃ; মির‘আত ২/৩৫১; ঐ, ৫/৭৫ প্রভৃতি।

[15]. ফিক্বহুস সুন্নাহ ২/৩০ পৃঃ।

[16]. মির‘আত ৫/১০৬-১০৯।

[17]. মির‘আত ২/৩৫০ পৃঃ; ঐ, ৫/৭৪ পৃঃ।

[18]. ইবনু কুদামা, আল-মুগনী (বৈরূত ছাপা : তারিখ বিহীন), ১১/১১৭ পৃঃ।

[19]. মুত্তাফাক্ব আলাইহ, মিশকাত হা/১৪৭২; মুসলিম, নায়ল ৬/২৪৮-২৪৯ পৃঃ।

[20]. মির‘আত ৫/১২০

[21]. তিরমিযী হা/১৫১০; আহমাদ হা/২৬৪৫৮ সনদ হাসান।

[22]. আল-আদাবুল মুফরাদ হা/১২৮

[23]. তিরমিযী তুহফা সহ, হা/১৫২৮, ৫/৭৯ পৃঃ; মির‘আত ৫/৯৪ পৃঃ।

[24]. আহমাদ, মির‘আত ৫/১২১; আল-মুগনী  ১১/১১১ পৃঃ।

[25]. আল-মুগনী, ১১/১১০ পৃঃ।

[26]. বুখারী, মিশকাত হা/১৪৩৩;  তিরমিযী, মিশকাত, হা/১৪৪০ সনদ ছহীহ।

[27]. আহমাদ হা/২৩০৩৪, সনদ হাসান; নায়লুল আওত্বার ৪/২৪১

[28]. মাজমূ‘ ফাতাওয়া ইবনে তায়মিয়াহ, ২৬/৩০৪; মুগনী, ১১/৯৪-৯৫ পৃঃ।

[29]. বায়হাক্বী, ইরওয়াউল গালীল হা/১১৩৯; মির‘আত ৫/৭২-৭৩

[30]. মির‘আত, ২/৩৬৮-৬৯; ঐ, ৫/১১৭-১২০; কিতাবুল উম্ম ২/২২৫-২৬।

– See more at: http://www.at-tahreek.com/october2014/article0601.html#sthash.51cFHbxt.dpuf

Advertisements

About sogoodislam

The concept of Islam is only-La ila ha illal la hu Muhamadur Rasulullah.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: